বন্দুক যুদ্ধে ইউপিডিএফ সদস্য নিহত

21

 

উদ্ধার সরঞ্জাম।

স্টাফ রিপোর্টার:: রাঙ্গামাটি সদর উপজেলাধীন বন্দুকভাঙ্গা এলাকায় সেনাবাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমা হত্যা মামলার এজাহারভূক্ত আসামী ইউপিডিএফ কর্মী অর্পন চাকমা নিহত হয়েছে। বুধবার ভোর ৫টার সময় এ ঘটনা ঘটে।

অর্পন চাকমা পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউপিডিএফ মূল দলের সহকারি কোম্পানি কমান্ডার এবং ২০১৮ সালে নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট শক্তিমান চাকমা হত্যাকান্ডের অন্যতম প্রধান এজাহারভূক্ত আসামি।

সম্পর্কিত খবর

সূত্র জানিয়েছে, ভোর ৫টার দিকে সুবলং ক্যাম্পের একটি টহল টিমের ওপর সন্ত্রাসীরা গুলি চালায়। আত্মরক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও গুলি করে।

পরে দলের কমান্ডার সুবলং ক্যাম্পে হামলার বিষয়টি জানালে আরেকটি টহল টিম তাদের সাথে যোগ দেয়, বলেন রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শফিউল্ল্যাহ। তিনি বলেন, ১৫-২০ মিনিট বন্দুকযুদ্ধের পর সন্ত্রাসীরা চলে গেলে টহল দল ঘটনাস্থল থেকে অর্পণ চাকমার লাশ উদ্ধার করে।

তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি এবং একটি দেশীয় অস্ত্র, গোলাবারুদ এবং অন্যান্য সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে।

পরে স্থানীয়রা নিহত ব্যক্তি ইউপিডিএফ সদস্য বলে জানায়।

উল্লেখ্য, গত ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০ তারিখেও একই এলাকায় সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ সন্তু লারমা সমর্থিত জেএসএস সন্ত্রাসীদের সাথে গোলাগুলিতে সুমন চাকমা নামে ইউপিডিএফ (মূল) এর আরেক সন্ত্রাসী নিহত হয়েছিল। ঐদিনে ইউপিডিএফের পক্ষ থেকে জেএসএস (সন্তু) বাহিনীর স্বশস্ত্র সন্দ্রাসীরা তাদের ১জন সদস্যকে অর্তকিতভাবে গুলি করে হত্যা করেছে বলে দাবি করেন।